সিলেটে পৌঁছেই কোয়ারেন্টিনে যুক্তরাজ্যফেরত ৪১ যাত্রী

বিজ্ঞাপন

করোনা ভাইরাসের নতুন ধরনের (স্ট্রেইন) সংক্রমণের কারণে যুক্তরাজ্যের বসবাসরত আরও ৪১ সিলেট প্রবাসী দেশে ফিরলেন।
সোমবার ১২টা ৩২ মিনিটে যুক্তরাজ্যের হিথ্রো বিমানবন্দর থেকে বিমানের বিজি-২০২ ফ্লাইটে আরও ৪৭ জন সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌছেছেন। এরমধ্যে ৪১ জন সিলেটে এবং ৬ জন একই ফ্লাইটে ঢাকায় গেছেন।
ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ব্যবস্থাপক হাফিজ আহমদ বাংলানিউজকে বলেন, ফ্লাইটে ৪৭ জন যাত্রী এসেছেন। এরমধ্যে সিলেটে নেমেছেন ৪১ জন। শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তাদের সবাইকে বাসযোগে নির্ধারিত হোটেলে নিয়ে যাওয়া হবে।
এরইমধ্যে যুক্তরাজ্য থেকে আসা যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন জন্য নগরের দু’টি হোটেল প্রস্তুত করেছে সিলেট জেলা প্রশাসন। এছাড়া আরও ৫টি হোটেল প্রাথমিকভাবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এদিকে, নির্ধারিত হোটেলে বাধ্যতামূলক ১৪ দিন কোয়ারেন্টিন থাকার নির্দেশনার পর যুক্তরাজ্য প্রবাসীদের অনেকেই দেশে ফিরতে আগ্রহ হারাচ্ছেন। বাংলাদেশ সরকার থেকে এমন নির্দেশনার পর থেকে ১৫২ জন যাত্রীই বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সে ফ্লাইটে তাদের বুকিং বাতিল করেছেন।
ওসমানী বিমানবন্দর সূত্র জানায়, সপ্তাহের প্রতি সোমবার ও বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যের হিথ্রো বিমানবন্দর থেকে সিলেট ওসমানী আন্তর্জতিক বিমানবন্দরে বিমানের সরাসরি ফ্লাইট আসে। এ অবস্থায় করোনার নতুন ধরণের (স্ট্রেইন) সংক্রমণ আতঙ্কে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে বিমান যোগাযোগ বন্ধেরও দাবি উঠে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, যুক্তরাজ্য সরাসরি বিমানের ফ্লাইটে সর্বশেষ ৩১ ডিসেম্বর ২৩৭ যাত্রী নিয়ে সিলেট ওসমানী বিমানবন্দরে আসে বিমানের ফ্লাইট। এরআগে ২৮ ডিসেম্বর ২০২ জন ও গত ২৪ ডিসেম্বর ২০২ জন যাত্রী যুক্তরাজ্য থেকে সিলেটে ফেরেন। এই তিনদিনে যথাক্রমে ১৬৫, ১৪৪ ও ২০২ জন ছিলেন সিলেটের যাত্রী। সবমিলিয়ে গত ডিসেম্বরে লন্ডন থেকে আটটি ফ্লাইটে এক হাজার ২২৬ যাত্রী সিলেট এসেছেন।
সোমবার আসা যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের জন্য সিলেটের হোটেল হলি গেইটে নেওয়া হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিজ্ঞাপন