সিলেটে অপহৃত ভারতীয় নাগরিক উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৪

স্টাফ রিপোর্ট :: সিলেট নগরীর শেখঘাট এলাকা থেকে অপহরণকারী চক্রের চার সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে সিলেট মহানগর পুলিশের সিআরটি ও কোতোয়ালি থানা পুলিশের একটি যৌথ দল। এসময় অপহৃত ভারতীয় নাগরিক ওয়ান্সইম্পিয়ার বিয়ামকে উদ্ধার করে করে তারা।

গোপন তথ্যের ভিত্তিতে খবর পেয়ে রোববার ভোরে পুলিশের ক্রাইসিস রেসপন্স টিম (সিআরটি) ও কোতোয়ালি থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে উদ্ধার করে। ভারতীয় নাগরিক ওয়ান্সইম্পিয়ার শিলং মেঘালয় রাজ্যের ল্যাডরিমেবল থানাধীন ওয়ানশুক বলের ছেলে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে, জৈন্তাপুর থানাধীন কেন্ডি কাঠাল বাড়ি গ্রামের অর কুমার বিশ্বা সের ছেলে নীল মনি বিশ্বাস (২৫), একই এলাকার অতুল দেবনাথের ছেলে শ্রী দোলন দেবনাথ (২২), একই থানাধীন চাঁনপুর গ্রামের মহানাথ বিশ্বাসের ছেলে সুজিত বিশ্বাস ও শিকার খাঁ গ্রামের মৃত মন নমের ছেলে নিতাই নম (২৮)। এ ঘটনায় পলাতক রয়েছে জৈন্তাপুরের কেন্ডি গ্রামের দেলোয়ার হোসেন দিলু ও রিপন বিশ্বাস।

এ ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে অপহরণকারীদের বিরুদ্ধে একটি ও বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের দায়ে কন্ট্রোল অব এন্ট্রি অ্যাক্ট আইনে ভারতীয় নাগরিকের বিরুদ্ধে পৃথক আরেকটি মামলা দায়ের করে। রোববার দুপুরে ভারতীয় নাগরিকসহ গ্রেপ্তারকৃতদের পৃথক দুটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্র জানায়, ভারতীয় নাগরিক ওয়ান্সইম্পিয়ার বিয়ামকে বাংলাদেশি নাগরিকের কাছে গরু কেনাবেচার কথা বলে পলাতক দিলু ও রিপন হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে ফোন করে গোয়াইনঘাট থানাধীন তামাবিল স্থলবন্দরের পূর্বে কাঁটাতারবিহীন সীমান্ত পথে বাংলাদেশে নিয়ে আসে। ওয়ান্সইম্পিয়ার বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করলে তাকে ডেকে নিয়ে আসা ব্যক্তিরা সিলেট নগরীর শেখঘাট কলাপাড়াস্থ আম্বিয়ার কলোনীতে নিয়ে বন্দী করে রাখে। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (গণমাধ্যম) জ্যোর্তিময় সরকার। তিনি বলেন, অপহরণ ও ভারতীয় নাগরিক বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করে পুলিশ। এসময় পুলিশ বাংলাদেশি ও ভারতীয় নাগরিকসহ ৫জনকে গ্রেপ্তার করেছে। ভারতীয় নাগরিক বাংলাদেশে কীভাবে প্রবেশ করেছে তার কোনো বৈধ কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ হয়। বৈধ পাসপোর্ট-ভিসা ব্যতীত কিভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে তার কোনো সঠিক জবাব দিতে পারেনি ভারতীয় নাগরিক।

তিনি আরও জানান, বাংলাদেশি নাগরিক নীল মনি বিশ্বাস, কৃষ্ণ, দোলন দেবনাথ, সুজিত বিশ্বাস, নিতাই নম, দেলোয়ার হোসেন দিলু, রিপন বিশ্বাস পরষ্পর যোগসাজসে ভারতীয় নাগরিক অপহরণ করে বন্দি করে রাখে।

সিলেটে অপহৃত ভারতীয় নাগরিক উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৪

স্টাফ রিপোর্ট :: সিলেট নগরীর শেখঘাট এলাকা থেকে অপহরণকারী চক্রের চার সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে সিলেট মহানগর পুলিশের সিআরটি ও কোতোয়ালি থানা পুলিশের একটি যৌথ দল। এসময় অপহৃত ভারতীয় নাগরিক ওয়ান্সইম্পিয়ার বিয়ামকে উদ্ধার করে করে তারা।

গোপন তথ্যের ভিত্তিতে খবর পেয়ে রোববার ভোরে পুলিশের ক্রাইসিস রেসপন্স টিম (সিআরটি) ও কোতোয়ালি থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে উদ্ধার করে। ভারতীয় নাগরিক ওয়ান্সইম্পিয়ার শিলং মেঘালয় রাজ্যের ল্যাডরিমেবল থানাধীন ওয়ানশুক বলের ছেলে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে, জৈন্তাপুর থানাধীন কেন্ডি কাঠাল বাড়ি গ্রামের অর কুমার বিশ্বা সের ছেলে নীল মনি বিশ্বাস (২৫), একই এলাকার অতুল দেবনাথের ছেলে শ্রী দোলন দেবনাথ (২২), একই থানাধীন চাঁনপুর গ্রামের মহানাথ বিশ্বাসের ছেলে সুজিত বিশ্বাস ও শিকার খাঁ গ্রামের মৃত মন নমের ছেলে নিতাই নম (২৮)। এ ঘটনায় পলাতক রয়েছে জৈন্তাপুরের কেন্ডি গ্রামের দেলোয়ার হোসেন দিলু ও রিপন বিশ্বাস।

এ ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে অপহরণকারীদের বিরুদ্ধে একটি ও বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের দায়ে কন্ট্রোল অব এন্ট্রি অ্যাক্ট আইনে ভারতীয় নাগরিকের বিরুদ্ধে পৃথক আরেকটি মামলা দায়ের করে। রোববার দুপুরে ভারতীয় নাগরিকসহ গ্রেপ্তারকৃতদের পৃথক দুটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্র জানায়, ভারতীয় নাগরিক ওয়ান্সইম্পিয়ার বিয়ামকে বাংলাদেশি নাগরিকের কাছে গরু কেনাবেচার কথা বলে পলাতক দিলু ও রিপন হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে ফোন করে গোয়াইনঘাট থানাধীন তামাবিল স্থলবন্দরের পূর্বে কাঁটাতারবিহীন সীমান্ত পথে বাংলাদেশে নিয়ে আসে। ওয়ান্সইম্পিয়ার বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করলে তাকে ডেকে নিয়ে আসা ব্যক্তিরা সিলেট নগরীর শেখঘাট কলাপাড়াস্থ আম্বিয়ার কলোনীতে নিয়ে বন্দী করে রাখে। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (গণমাধ্যম) জ্যোর্তিময় সরকার। তিনি বলেন, অপহরণ ও ভারতীয় নাগরিক বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করে পুলিশ। এসময় পুলিশ বাংলাদেশি ও ভারতীয় নাগরিকসহ ৫জনকে গ্রেপ্তার করেছে। ভারতীয় নাগরিক বাংলাদেশে কীভাবে প্রবেশ করেছে তার কোনো বৈধ কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ হয়। বৈধ পাসপোর্ট-ভিসা ব্যতীত কিভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে তার কোনো সঠিক জবাব দিতে পারেনি ভারতীয় নাগরিক।

তিনি আরও জানান, বাংলাদেশি নাগরিক নীল মনি বিশ্বাস, কৃষ্ণ, দোলন দেবনাথ, সুজিত বিশ্বাস, নিতাই নম, দেলোয়ার হোসেন দিলু, রিপন বিশ্বাস পরষ্পর যোগসাজসে ভারতীয় নাগরিক অপহরণ করে বন্দি করে রাখে।

এএসআর/০০৭