সিলেটের বাদামবাগিচায় মায়ের যন্ত্রণায় অতীষ্ঠ সন্তানরা

  • দফায় দফায় থানা-আদালতে মামলা, অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্ট
সারা বিশ্ব জানে মায়ের বুকই হচ্ছে সন্তানের নিরাপদ আশ্রয়। শতো বিপদ আপদেও সন্তানদেরকে রক্ষায় নিজের বুক পেতে দেন মা’য়েরা। কিন্তু সিলেট নগরীর বাদামবাগিচায় ঘটেছে এর ব্যতিক্রম। এক মা তার আরও সন্তানদের নিয়ে অতীষ্ঠ করে তুলেছেন নিজের সন্তানসহ স্বামীর প্রথম স্ত্রীর সন্তানদেরকেও। কথায় কথায় তিনি মামলা করছেন আদালতে। দৌঁড়াচ্ছেন থানায়। আর এর মূলে রয়েছে স্বামীর রেখে যাওয়া সম্পত্তি।

সম্পত্তির দখল রাখতে মরিয়া বাদামবাগিচার মৃত রাজা মিয়ার স্ত্রী রানী বেগম। আর এই সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জেরেই রানী বেগমের ছেলে ইলাল হোসেন বৃহস্পতিবার রাতে তার আপন ভাই বিল্লালের বাসায় হামলা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে আত্মরক্ষার্থে বিল্লাল জরুরি সেবা নাম্বার ৯৯৯ এ কল দেন। পরে পুলিশ আসলে হামলাকারিরা পালিয়ে যায়।

বাদামবাগিচা সেতুবন্ধন ৫৫/১ নাম্বার বাসার বাসিন্দা রাজা মিয়ার ছেলে বিল্লাল হোসেন অভিযোগ করেন, সম্পত্তি নিয়ে ভাগ-বাটোয়ারা মামলা করার জেরে রাগান্বিত হয়ে দীর্ঘদিন ধরে তার আপন মা রাণী বেগম কয়েকজন ভাই-বোনদের যোগসাজশে আমার বিরুদ্ধে, ভাই আব্দুস সালাম ও কামাল হোসেন এবং বোন রহিমার বিরুদ্ধে বিভিন্নরকম অপপ্রচার চালাচ্ছেন। তিনি আমার পিতার প্রথম স্ত্রী সুফিয়া বেগমের সন্তানদেরকেও নানারকমভাবে হয়রানী করে আসছেন দীর্ঘদিন ধরে।

আমার পিতার মৃত্যুর পর এখনও তিনি তাদের সম্পত্তির অংশ বুঝিয়ে দেননি। তিনি সব সম্পত্তি তাকে সমর্থনদানকারি ভাই-বোনদের যোগসাজশে একাই দখলে রাখার অপচেষ্টায় লিপ্ত। এসব চিন্তায় ও মামলা মোকদ্দমা নিয়ে ব্যয় করতে করতে প্রায় নিঃস্ব অবস্থায় আমার সৎ ভাই জামাল আহমদ সম্প্রতি মারা গেছেন। তারপরও আমাদের মাতা রানী বেগমের মন সদয় হয়নি। উল্টো তিনি বিভিন্ন রকম মিথ্যে অভিযোগ সাজিয়ে থানা ও আদালতে একের পর এক মামলা করে আসছেন।

এয়ারপোর্ট থানায় লিখিত অভিযোগে বিল্লাল হোসেন দাবি করেন, ‘ইলাল আহমদ, জালাল আহমদ ও ফাইমা বেগম এরা তার আপন ভাই-বোন। রানী বেগম তাদের আপন মা। কিন্তু আপন মা হয়েও তিনি অন্য ভাই বোনদের যোগসাজশে আমাদের সম্পত্তি গ্রাস করতে চাচ্ছেন। ৫৫/১ নম্বর বাসার দ্বিতীয় তলায় বিল্লাল বড় ভাই কামাল হোসেনসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে বসবাস করেন। ইলাল, জালাল ও ফাইমা মায়ের সাথে বাসার নিচ তলায় থাকেন। তাদের সাথে দীর্ঘদিন ধরে বাসাসহ পিতার রেখে যাওয়া সম্পত্তির ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। সম্পত্তি নিজেরা একাই দখল করে নেয়ার অপচেষ্টায় লিপ্ত আছেন। এসব অপকর্মের প্রতিবাদ করায় তারা বিভিন্ন সময় হত্যার হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদান করে আসছে।

বিল্লাল থানায় লিখিত অভিযোগে বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার প্রায় রাত ১১টার দিকে ইলালসহ অন্য ভাই-বোনেরা মিলে আমার বাসার সামনে এসে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এসময় আমি এর কারণ জানতে চাইলে তারা আমাকে ধারালো অস্ত্র নিয়ে মারতে উদ্যত হয়। পরে আমি প্রাণ বাঁচাতে ঘরের দরজা বন্ধ করে দিয়ে জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে কল দেই। পরে পুলিশ সদস্যরা এসেও এর সত্যতা পেয়েছেন। তারা এসে আমি ও আমার পরিবারের লোকজনকে উদ্ধার করেন। এ ঘটনাকেই আড়াল করতে ও ইলালকে রক্ষা করতে এয়ারপোর্ট থানায় আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ দিয়েছেন মা রানী বেগম। সাজানো ও বানোয়াট ঘটনা উল্লেখ করে তিনি থানায় আমার বিরুদ্ধে তাকে মারধোর করার অভিযোগ তোলেছেন। পুলিশ যদি যথাযথ তদন্ত করেন তবে এর কোনো সত্যতা পাবে না। ঘটনার দিনের সিসিটিভি ফুটেজেও রামদা দিয়ে বাসায় হামলা ও হুমকি প্রদানের দৃশ্য ধরা পড়েছে।’

বিল্লাল ভয়ে ও শঙ্কায় আছেন জানিয়ে বলেন, ‘তারা যেকোনো সময় আমার ও আমার পরিবারের লোকজনের জান-মালের ক্ষতি করতে পারে এবং পিতার সম্পত্তি নিজেরা একা দখল করে নিতে পারে। তাই আমি জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে এবং সম্পত্তির সঠিক ভাগ-বাটোয়ারার ব্যবস্থা নিতে পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর কাছে দাবি জানাচ্ছি।’