ধারাবাহিক নাটকের মাধ্যমে কাজ শুরু করেছেন নির্মাতা, শিল্পী ও কলাকুশলীরা

পবিত্র ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে ইতিমধ্যে অনেকেই ধারাবাহিকের পাশাপাশি শুরু করেছেন ঈদের নাটকের শুটিং। তাঁরা সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিরাপত্তার সঙ্গে কাজ করছেন। তবে কিছু তারকা এখনো শুটিংয়ে যোগ দেওয়া নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন।

১০ জুন থেকে দুই দিন জিম জসীম নামে একটি ঈদের নাটকের শুটিং করেছেন অভিনেতা ও নির্মাতা শামীম জামান। ঈদে ১২ থেকে ১৪টি নাটক নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে তাঁর। সেসব নাটকে মোশাররফ করিম, চঞ্চল চৌধুরীর মতো বেশ কিছু তারকাকে নিতে চান এই নির্মাতা।

এ মুহূর্তে কোনো প্রযোজক বা টিভি চ্যানেলের কাছে নতুন কোনো নাটক নেই। যা ছিল তার প্রায় সবই ঈদুল ফিতরে প্রচার হয়ে গেছে। নতুন করে শুটিং না করলে আসছে ঈদে অনুষ্ঠানসংকটে পড়বে চ্যানেলগুলো। সে কারণে টেলিভিশনগুলোতেও বাড়ছে ব্যস্ততা।

এনটিভি, বাংলাভিশন, চ্যানেল আই, আরটিভি, এটিএন বাংলাসহ বেশ কিছু টিভি চ্যানেল ইতিমধ্যে ঈদের নাটক নিয়ে পরিকল্পনা অনেকটাই পাকাপাকি করে ফেলেছে। এনটিভির অনুষ্ঠান বিভাগের মহাব্যবস্থাপক আলফ্রেড খোকন বলেন, ‘বিগত বছরগুলো থেকে এবারের ঈদ অনুষ্ঠানে কিছুটা ভিন্নতা আনার চেষ্টা করছি। আপাতত আমাদের ২১টি নাটক, ৭টি টেলিছবি ও ২টি ধারাবাহিক প্রচারের পরিকল্পনা চূড়ান্ত হয়েছে। ইতিমধ্যে একটি ধারাবাহিক এবং কিছু একক নাটকের শুটিং শুরু করেছেন নির্মাতারা।’

প্রতি ঈদে টিভি ও অনলাইন প্ল্যাটফর্মগুলোতে নাটকের সংখ্যা ৬০০ থেকে ৭০০ ছাড়িয়ে যায়। গত ঈদুল ফিতরে করোনা সতর্কতায় শুটিং স্থগিত থাকায় নাটকের সংখ্যা কমে দেড় শতে নামে। এর বেশির ভাগ নাটকের দৃশ্য ধারণ করা হয়েছিল করোনার আগে। নাটক না থাকায় রোজগার কমে যাচ্ছে এ অঙ্গনের পেশাজীবীদের। কাজ চলমান থাকলে কিছু লোক অন্তত বেকার হবেন না বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট